রাত ৯:২৮, শুক্রবার, ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৭ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ১লা মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী

এ কিসের প্রস্তুতি? পরমাণু যুদ্ধ নাকি কেয়ামতের?

 

ভোরের বার্তা:


পরমাণু যুদ্ধ কি আসন্ন? পরমাণু বোমায় ধ্বংস হয়ে যাবে পৃথিবী? যুদ্ধ হলো না। তবে কি পৃথিবীর আয়ু শেষ? কেয়ামত চলে আসছে সামনেই? একটি মার্কিন প্রতিষ্ঠান আবাসন তৈরি করে রাখছে আগেভাগেই। বিধ্বংসী কিছু হলেও ওই সব আবাসনের কিছু হবে না। রীতিমতো বাংকারকে কঠিন দুর্গ বানাচ্ছে ওই প্রতিষ্ঠান।

আপনাকে নিরাপদে রাখতে চায় মার্কিন প্রতিষ্ঠান ভিভোস গ্রুপ। বাংকারের ভেতর সুরক্ষিত আবাসন করছে ক্যালিফোর্নিয়া ভিত্তিক ওই প্রতিষ্ঠান। পরমাণু বোমা বিস্ফোরণেও ওই বাংকারের কিছুই হবে না!

সংবাদমাধ্যম দি ইনডিপেনডেন্ট জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের সাউথ ডকোটায় এ ধরনের আবাসন করছে ভিভোস। করছে মানে একসময় বাংকার ছিল। ওই বাংকারগুলোই আবাসন এমনকি কার্যালয়, দোকান হিসেবেও ব্যবহার করা যাবে। ওই এলাকায় থাকা ৫৭৫টি বাংকার আছে, যা কনক্রিট ও স্টিলের তৈরি। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, পাঁচ লাখ পাউন্ডের বিস্ফোরণ হলেও এসব বাংকারের কিছুই হবে না।

এসব বাংকার আসলে সেনা প্রশিক্ষণের জন্য নির্মাণ করা হয়। ১৯৪২ সালে এসব বাংকার নির্মাণ করা হয়। এসব বাংকারে রাখা হতো বিভিন্ন বিস্ফোরক। ১৯৬৭ সালের পর থেকে এসব বাংকার অকোজো।

ভিভোস জানিয়েছে, যাঁরা এসব বাংকার ব্যবহার করতে চান অর্থাৎ কিনতে চান, তাঁরা যেভাবে চাইবেন সেভাবেই দেওয়া হবে। চাইলে ভিভোসের কর্মকর্তাদের দিয়ে সাজিয়ে নিতে পারবেন নিজেদের বাংকার। আবার নিজেরাও নিজেদের প্রকৌশলী এনে সাজাতে পারেন নিজ বাসা মানে বাংকার!

তবে খরচের একটা তালিকা ভিভোস দিয়েছে। জেনারেটর, তেল, বিদ্যুৎ, গরম পানি এবং থাকার জন্য মোটামুটি একটা ব্যবস্থা করে দেবে ভিভোস। এতে খরচ পড়বে প্রায় ১২ হাজার ডলারের মতো।

কেউ আরো একটু সুযোগ-সুবিধা চাইতে পারেন। ধরুন, ফ্লোরটা টাইলসের, দেয়ালটা ভালো রঙের, আরো কিছু চমৎকার আসবাব। এতে খরচ হতে পারে ২০ হাজার ৩০০ ডলারের মতো। এ রকম যত সুবিধা প্রয়োজন, ততই গুনতে হবে ডলার।

ক্রেতারা চাইলে নিজেদের আবাসনটা ডিলাক্স স্যুটে বদলে ফেলতে পারবেন। ভিভোস জানিয়েছে, তিন বেডরুম, একটা রান্নাঘর, লিভিং রুম, স্টোর করার ঘর এবং একটা হোম থিয়েটার- এসব নিয়ে একটা বাসা তৈরি করা যাবে।

নিরাপত্তার যথাযথ ব্যবস্থা করবে ভিভোস। থাকবে সার্বক্ষণিক প্রহরা। এ ছাড়া যাবতীয় বিষয় দেখাশোনার জন্য থাকবে তত্ত্বাবধায়ক।

কেবল আবাসন নয় ভিভোস দোকানপাট, কার্যালয়ও করতে চায় এসব বাংকারে। একটি বাংকাকে স্কুল ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রও করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি।

২০১৭ সালের মধ্যেই ক্রেতাদের হাতে এসব তুলে দিতে চায় ভিভোস।

ক্রেতারা ৯৯ বছরের জন্য এসব আবাসন ইজারা নিতে পারবে। এতে খরচ পড়বে ২৫ হাজার ডলার এবং প্রতিবছরের জন্য এক হাজার ডলার। ক্রেতারা এখনই আবেদন করতে পারবেন এসব আবাসনের জন্য। প্রথম যাঁরা আবেদন করবেন, তাঁদের হাতে এসব আবাসনের চাবি তুলে দেওয়া হবে পরবর্তী গ্রীষ্মে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*